হুমায়ুন আহমেদের প্রেমের উপন্যাসের তালিকা

হুমায়ুন আহমেদের প্রেমের উপন্যাসের তালিকা

হুমায়ুন আহমেদের প্রেমের উপন্যাস তালিকা

  1. নির্বাসন
  2. নক্ষত্রের রাত
  3. তোমাকে
  4. বাসর
  5. আমার আছে জল
  6. আয়নাঘর
  7. নবনী
  8. কৃষ্ণপক্ষ
  9. নীল অপরাজিতা
  10. তিথির নীল তোয়ালে
  11. পাখি আমার একলা পাখি
  12. তুমি আমায় ডেকেছিলে ছুটির নিমন্ত্রণে

উপরে উল্লেখিত উপন্যাসগুলো ছাড়াও আরো কোনো প্রেমের উপন্যাসের নাম জানা থাকলে কমেন্টে জানাবেন।

নিচে নির্বাসন ও নক্ষত্রের রাত উপন্যাসগুলোর সারসংক্ষে এবং pdf ফাইলের লিংক দেয়া হয়েছে।

নির্বাসন

নির্বাসন উপন্যাসটি হুমায়ন আহমেদের সফল উন্যাসের মধ্যে একটি। উপন্যাসের নায়িকা জরীর প্রেম কাহিনী নিয়ে লেখা হয়েছে উপন্যাসটি। জরীর চাচাতো ভাই আনিস ছিল একজন সফল ও দুঃসাহসী আর্মি অফিসার। জরী ও আনিসের মধ্যে সখ্যতা গড়ে ওঠে, সখ্যতা থেকে ভালবাসা। তাদের বিয়ের হওয়া নিয়ে কোনো বাধা ছিলনা। কিন্তু বিয়ে হওয়ার আগেই শুরু হয় মুক্তিযুদ্ধ। যুদ্ধে আনিস পা হাড়ায়। পঙ্গু হয়ে এখন বাড়ির কোনায় একটা রুমে বদ্ধ জীবণ কাটাতে থাকে। কিন্তু জরীর বিয়ের বয়স ঘনিয়ে আসায় অন্নত্র বিয়ে ঠিক করে তার বাবা। জরী এখনো আনিসকে ভালবাসে। কিন্তু মুখ ফুটে বলতে পারেনা কাউকে। অন্যদিকে আনিস পঙ্গু হয়ে ভাবতে থাকে জরীকে বিয়ের কথা বলার অধীকার তার আর নেই। দুজনের মনের কথা মনেই থেকে যায়। জরীর বিয়ের দিন চলে আসে। সারাদিন সবাই আনন্দ করে, হাসি তামাশা করে।

উপন্যাসটির একটি বড় অংশে জরীর বিয়ের দিনের নানান কথা ও ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে। সকাল, দুপুর, বিকাল এভাবে একটু একটু করে সময় তুলে ধরেছেন লেখক। প্রতিটা মুহূর্ত বুক ভেঙে কান্না আসবে। যাইহোক, দিন শেষে যখন জরী বিয়ের মধ্য দিয়ে ভালবাসার মানুষ আনিসের থেকে নির্বাসিত হয়ে শ্বশুর বাড়ি যেতে থাকে, তখন আনিস বাড়ির এক কোনায় নির্বাসিত চোখ নিয়ে জরীর চলে যাওয়া দেখতে থাকে।


নক্ষত্রের রাত

নক্ষত্রের রাত উপন্যাসের শুরুতে দেখা যায় রেবেকা নামের একটি মেয়ে বাংলাদেশ থেকে আমেরিকায় এসেছে তিনমাসের একটি ট্রেনিং নিতে। কিন্তু আমেরিকার এয়ার্পোর্টে নামার পর দেখে তাকে রিসিভ করার জন্য যার আসার কথা ছিল সে আসেনি। অনেক্ষণ অপেক্ষার পর এয়ার্পো্টের একজন মেয়ের সহায়তায় বাংলাদেশি প্রবাশিদের লিস্ট থেকে পাশা নামের একজনকে কল দেয়। এরপর পাশা এসে রেবেকাকে নিয়ে যায়। রাতে নিজের বাসায় আশ্রয় দেয় এবং পরের দিন রেবেকার গন্তব্যে পৌঁছেও দেয়। কিন্তু জানা যায় পাশা একজন অবৈধ অভিবাসী। এরপর শুরু হয় উপন্যাসের মূল কাহীনি। এই উপন্যাসের উপর একটি টিভি নাটক তৈরি হয়েছিল, যা অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিল সে সময়। তবে উপন্যাস পড়ার মজাটা নাটকে অনুভব করা যাবেনা। অনেক টুইস্ট রয়েছে উপন্যাসটিতে।

Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url